fbpx

Facebook Advertising Service | Facebook Boosting Service

***সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী আন্তর্জাতিক ডিজিটাল বিজ্ঞাপন সেবার উপর অতিরিক্ত ১৫% ভ্যাট আরোপিত হওয়ার কারনে ১লা ডিসেম্বর, ২০১৯ থেকে নিম্মোক্ত সার্ভিস চার্জ কার্যকর হবে***

সার্ভিস চার্জ

প্যাকেজবিজ্ঞাপন বাজেটসার্ভিস চার্জ/প্রতি ডলারবিকাশ/রকেট ফি
Basic১ থেকে ৩৯ ডলারের মধ্যে বাজেট হলে১১৬ টাকা প্রতি ডলারনাই
Standard৪০ থেকে ৮৯ ডলারের মধ্যে বাজেট হলে১১৪ টাকা প্রতি ডলারনাই
Premium৯০ ডলার এবং তার উপরে বাজেট হলে১১২ টাকা প্রতি ডলারনাই

*** সকল সার্ভিস চার্জে সরকার নির্ধারিত ১৫% ভ্যাট অন্তর্ভুক্ত।

আমাদের মাধ্যমে অ্যাড দেওয়ার নিয়মাবলী

১ম ধাপঃ অ্যাড অর্ডারটির ব্যাপারে বিস্তারিত জানানো

গ্রাহক কি ধরনের পন্য বা সেবার বা কোন ধরনের অ্যাড দিবে, বাজেট কেমন হবে এবং অ্যাডটি কতদিন চলবে ইত্যাদিসহ সম্পূর্ন ব্যাপারে আমাদের বিস্তারিত অবগত করবে।

২য় ধাপঃ পেইজের Editor/Advertiser করা

পেইজের Editor/Advertiser হিসেবে এক্সেস নেওয়ার জন্য আমরা এজেন্সীর বিজনেস ম্যানেজার একাউন্ট হতে গ্রাহকের পেইজে Request পাঠাবো। গ্রাহক Request টি ডেস্কটপ/ল্যাপটপ থেকে Page Settings>Page Roles অপশনে গিয়ে এক্সেপ্ট করবে। উল্লেখ যে Request টি ফেসবুকের মোবাইল ভার্সনে বা অ্যাপে দেখায় না।

Facebook Advertising Service | Facebook Boosting Service

৩য় ধাপঃ টাকা পাঠানো

অ্যাডের নির্ধারিত সার্ভিস চার্জ আমাদেরকে bKash/Rocket/Bank এ অগ্রিম পাঠাতে হবে। টাকা পাঠানোর পর তার প্রাপ্তি নিশ্চিত করার জন্য অবশ্যই প্রয়োজনীয় প্রামানিক তথ্য যেমন- প্রেরকের bKash/Rocket নম্বরের শেষ ডিজিট বা Trx ID বা ব্যাংক জমার স্লিপের ছবি পাঠাতে হবে।

বিকাশ মার্চেন্টঃ

Merchant bKash

ব্যাংক একাউন্টঃ

Bank Name: Eastern Bank Ltd.

Beneficiary Name: AD Seventy One

A/C: 134 107 004 3018

অন্যান্য

১। বড় বাজেটের ক্ষেত্রে গ্রাহক চাইলে অগ্রিম পেমেন্টের ধরন এবং পরবর্তি পেমেন্টগুলোর ধরন আলোচনার মাধ্যমে নির্ধারন করতে পারবে। তবে শর্ত অনুযায়ি গ্রাহক নির্ধারিত সময়ে পেমেন্ট করতে ব্যর্থ হলে সাময়িক সময়ের জন্য গ্রাহকের অ্যাডটি Pause করে রাখা হবে।

২। অ্যাড সাধারনত দুটো সিস্টেমে দেওয়া যায়। একটি হচ্ছে সরাসরি পেইজ থেকে বেসিক লেভেলের টুলস ব্যবহার করে এবং আরেকটি হচ্ছে অ্যাড ম্যানেজারের অ্যাডভান্সড টুলস ব্যবহার করে। আমরা সাধারনত অ্যাড ম্যানেজারের অ্যাডভান্সড টুলস ব্যবহার করে অ্যাড সাবমিট করে থাকি। তবে গ্রাহক বেসিক লেভেলের টুলস ব্যবহার করে অ্যাড সেটাপ করাতে চাইলে তা অ্যাড সাবমিট করার আগেই উল্লেখ করতে হবে।

৩। অ্যাড সাবমিট করার পর ফেসবুক অটোমেটিক সিস্টেমের মাধ্যমে প্রথমে সেটা রিভিউ করে, এরপর একটিভ করে দেয়। কোন অ্যাড রিভিউ করার ক্ষেত্রে ফেসবুক সর্বোচ্চ ২৪ ঘন্টা বিলম্ব করতে পারে। সুতরাং এ ব্যাপারটি সম্পূর্ন ফেসবুকের নিয়ন্ত্রানাধীন যেখানে আমাদের কোন ভূমিকা নেই। তবে কোন অ্যাড যদি ২৪ ঘন্টা অতিক্রম হওয়ার পরও রিভিউতে থাকে তখন আমরা সেটা ফেসবুক সাপোর্টের মাধ্যমে ম্যানুয়াল রিভিউতে পাঠাবো। যদি এমন হয় ফেসবুকের কোন পলিসির কারনে অ্যাডটি কোনভাবেই একটিভ করা যাচ্ছে না, তবে গ্রাহকের সাথে আলোচনা করে সর্বোচ্চ ৫ কর্মদিবসের মধ্যে গ্রাহককে রিফান্ড করে দেওয়া হবে।

৪। গ্রাহক যদি টার্গেট অডিয়েন্স নিজেই সম্পূর্ণরূপে নির্ধারণ করে দেন সেক্ষেত্রে গ্রাহকের অনুরোধে অ্যাডের অডিয়েন্স তাঁকে শেয়ার করা হবে। তবে অডিয়েন্স যদি আমাদের দ্বারা নির্ধারিত হয় সেক্ষেত্রে ব্যবসায়িক পলিসির কারনে অ্যাডের অডিয়েন্স গ্রাহককে শেয়ার করতে আমরা বাধ্য নই।

প্রশ্ন-উত্তর/জিজ্ঞাসা

১। ফেসবুকে অ্যাড জিনিসটি কি?

উত্তরঃ ফেসবুক ব্যবহারের সময় যে বিজ্ঞাপনগুলো আমাদের চোখে পড়ে এবং যেগুলোর সাথে “Sponsored” শব্দটি লেখা থাকে সেগুলোকেই বলা হচ্ছে ফেসবুক অ্যাড।

২। ফেসবুকে তো নিজেই অ্যাড দেয়া যায়। তাহলে কোন এজেন্সির কাছে কেন যেতে হবে?

উত্তরঃ অ্যাড মানে শুধু ডলার খরচ নয়; এটি সৃজনশীলতা, অভিজ্ঞতা ও আরো কিছু জিনিসের সমন্বয় । টেকনিক্যালি আপনার একটা পেমেন্ট ম্যাথড হলেই অ্যাড দিতে পারবেন। ফেসবুক সব একাউন্টের সাথেই অ্যাড তৈরি ও পাবলিশ করার ব্যবস্থা করে দিয়েছে এবং অনেকে সেটা ব্যবহার করে ক্যাম্পেইন চালাচ্ছে। তবে পেশাদার আর অনভিজ্ঞ কাজের মধ্যে পার্থক্য অনেক। এজেন্সি অনেক ধরনের ব্যবসার হাজারো অ্যাড দিয়ে আসছে বছরের পর বছর। তারা Facebook community standard, Ad policy, Conversion rate, Bid, Placement, Detailed interest বিষয়গুলো মাথায় রেখে অ্যাডভার্টাইজিং করে। এজেন্সি হিসেবে আমরা চেষ্টা করি আমাদের প্রতিটি গ্রাহক যেন তার বিনিয়োগের সর্বোচ্চ ফল পায়।

৩। আপনাদের রেটটা একটু বেশি মনে হচ্ছে /ব্যাংকেতো ডলারের রেট ৮৫ টাকা করে/ অন্যরা প্রতি ডলার ৯০ টাকায় অফার করছে / আমি অল্প আয়ের ব্যবসায়ী / ছাত্র / অনেক দূরে থাকি – আমার জন্য কিছুটা ছাড় দেয়া যাবে?

উত্তরঃ অনলাইন অ্যাডভার্টাইজিং একটি প্রফেশনাল সার্ভিস, কোন ডলার বিক্রির সার্ভিস নয়। ডলারকে ভিত্তি করে সার্ভিস চার্জ নির্ধারন করা হয় বলে বাংলাদেশের বেশিরভাগ লোক এটাকে ডলার কেনা বেচার ব্যবসায়ের সাথে মিলিয়ে ফেলে। আচ্ছা একটা প্রশ্ন করি। আপনি যদি কোন ড্রেস বিক্রি করেন তবে কি সেটা কেনা দামেই বিক্রি করবেন নাকি আপনার আনুষাঙ্গিক খরচগুলোকে যোগ করে প্রফিট নির্ধারন করে বিক্রি করবেন? অবশ্যই প্রফিটে ড্রেসটি বিক্রি করবেন। আমাদের ক্ষেত্রেও কিন্তু একই কনসেপ্ট। আমাদের প্রত্যেকটা সার্ভিসে চার্জে ডলারের দাম + সরকার নির্ধারিত ১৫% ভ্যাট + বিকাশ/রকেট ক্যাশ আউট এবং ব্যাংক চার্জ + কার্ড মেইন্টেন্যান্স খরচ + আমাদের প্রফিট সবকিছুই আছে। আলাদা ভাবে এই সব হিসাব করার চাইতে ডলারের রেটে সবকিছু নিয়ে আসায় যে কোন বাজেটের অ্যাডের হিসাব সহজেই করা যায়। আর যতটুকু সম্ভব ছাড় দিয়েই আমাদের সার্ভিস চার্জগুলো নির্ধারিত হয়েছে। তাই কোন ডিসকাউন্টের অনুরোধ রাখা আমাদের পক্ষে সম্ভব নয় এবং এ ব্যাপার নিয়ে বারবার কথা বলে আমাদের বিব্রত না করতে অনুরোধ করছি।

৪। আমার পেইজের জন্য ১০ হাজার লাইক লাগবে। কত টাকা পে করতে হবে/কত টাকায় কত লাইক পাবো?

উত্তরঃ ফেসবুক অ্যাডের সিস্টেমটা হচ্ছে যেমন খরচ করবেন সেই অনুপাতে রেজাল্ট পাবেন। যেমন ৫ ডলারের অ্যাডে যে রেজাল্টটা পাবেন, ৬ ডলার অথবা ১০ ডলারের অ্যাডে স্বাভাবিকভাবে তার থেকে বেশিই রেজাল্ট পাবেন। এখানে আরেকটা বিষয় জানাটা খুব গুরুত্বপূর্ন তা হল ফেসবুক কখনো আপনাকে জানাবে না আপনি আসলে কত টাকা খরচ করলে ঠিক কতটুকু রেজাল্ট পাবেন। এর পিছনে মূলত কিছু ফ্যাক্টর কাজ করে বলে ফেসবুক সবসময় আনুমানিক হিসাবটা দেখায়। পেইজ লাইকের অ্যাডের ক্ষেত্রে ফ্যাক্টরগুলো হল – পেইজের ধরন, অ্যাডে ব্যবহার করা ছবি/ব্যানার কতটুকু আকর্ষনীয় এবং প্রাসঙ্গিক, অডিয়েন্সের ধরন, ফেসবুকের নিজস্ব বিডিং সিস্টেম ইত্যাদি। তবে বিজ্ঞাপন এজেন্সীগুলো অনেক ক্লাইন্টের কাজ করে বলে আনুমানিক হিসাবটা ফেসবুকের চেয়ে আরো ভালভাবে দিতে পারে।

যেমন আমরা আনুমানিক হিসাবটা এভাবে দেই –

পেইজ লাইকের অ্যাড হলে প্রতি ডলারে লাইক পেতে পারেন সর্বনিম্ম ১০০ এবং সর্বোচ্চ ২০০+

সুতরাং আপনি যদি ৫ ডলারের অ্যাড দেন তবে লাইক পেতে পারেন সর্বনিম্ম ৫০০ এবং সর্বোচ্চ ১০০০+

তবে এর ব্যতিক্রমও হতে পারে উপরে উল্লেখিত ঐ ফ্যাক্টরগুলোর কারনে।

৫। ৫ ডলার দিয়ে যদি একটা পোস্ট বুস্ট করাই তবে সেটা কত জনের কাছে Reach করবে?

উত্তরঃ ফেসবুক অ্যাডের সিস্টেমটা হচ্ছে যেমন খরচ করবেন সেই অনুপাতে রেজাল্ট পাবেন। যেমন ৫ ডলার দিয়ে কোন পোস্ট বুস্ট করালে যত রিচ, এঙ্গেইজমেন্ট পাবেন, ৬ ডলার অথবা ১০ ডলারের অ্যাডে স্বাভাবিকভাবে তার থেকে বেশিই রেজাল্ট পাবেন। এখানে আরেকটা বিষয় জানাটা খুব গুরুত্বপূর্ন তা হল ফেসবুক কখনো আপনাকে জানাবে না আপনি আসলে কত টাকা খরচ করলে ঠিক কতটুকু রেজাল্ট পাবেন। এর পিছনে মূলত কিছু ফ্যাক্টর কাজ করে বলে ফেসবুক সবসময় আনুমানিক হিসাবটা দেখায়। পোস্ট বুস্টের অ্যাডের ক্ষেত্রে ফ্যাক্টরগুলো হল – পোস্টের ধরন, অডিয়েন্সের ধরন, ফেসবুকের নিজস্ব বিডিং সিস্টেম ইত্যাদি। তবে বিজ্ঞাপন এজেন্সীগুলো অনেক ক্লাইন্টের কাজ করে বলে আনুমানিক হিসাবটা ফেসবুকের চেয়ে আরো ভালভাবে দিতে পারে।

যেমন আমরা আনুমানিক হিসাবটা এভাবে দেই –

পোস্ট বুস্টের অ্যাড হলে প্রতি ডলারে Reach পেতে পারেন সর্বনিম্ম ১৫০০ এবং সর্বোচ্চ ৩০০০+

সুতরাং আপনি যদি ৫ ডলারের অ্যাড দেন তবে Reach পেতে পারেন সর্বনিম্ম ৭৫০০ এবং সর্বোচ্চ ১৫০০০+

তবে এর ব্যতিক্রমও হতে পারে উপরে উল্লেখিত ঐ ফ্যাক্টরগুলোর কারনে।

৬। ৫ ডলার দিয়ে পোস্ট বুস্ট করালে পোস্টে কয়টা লাইক, কমেন্ট পড়বে?

উত্তরঃ লাইক, কমেন্ট, শেয়ার এগুলো অডিয়েন্সের ইচ্ছার উপর নির্ভর করে। অ্যাডটা যখন অডিয়েন্সের কাছে যাবে, অডিয়েন্সের স্বাধীনতা যে তারা কিভাবে অ্যাডটা দেখে রিঅ্যাক্ট করবে। ফেসবুক অ্যাডের দ্বারা সম্ভব না এই ক্ষেত্রে অডিয়েন্সকে ফোর্স করে পোস্টে নির্দিষ্ট পরিমান এঙ্গেইমেন্ট করানো। ব্যাপারটা সম্পূর্ন ন্যাচারাল! তাই আপনার পোস্টটাকে টার্গেট অডিয়েন্সের কাছে প্রাসঙ্গিক এবং আকর্ষনীয় করে উপস্থাপন করুন, আশা করি ভাল এঙ্গেইজমেন্ট পাবেন।